বৃহস্পতিবার ডিসেম্বর ৩, ২০২০ || ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

নারায়ণগঞ্জে তিন ক্লিনিক সিলগালা

খবর২৪ডেস্ক

নারায়ণগঞ্জে চারটি বেসরকারি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিযান চালিয়ে তিনটিকে সিলগালা (বন্ধ) করেছেন জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। একই সঙ্গে তাদের মোট ২ লাখ ৮০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এর মধ্যে একটি প্রতিষ্ঠানকে সিলগালা করার পাশাপাশি মালিকপক্ষের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা রুজু করা হয়েছে। বুধবার দুপুরে শহরের নবাব সলিমুল্লাহ সড়কের খানপুর ও ডন চেম্বার এলাকায় জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মানজুরা মুশাররফ ও নুশরাত আরা খানমের নেতৃত্বে জেলা প্রশাসন ও সিভিল সার্জন কার্যালয়ের যৌথ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিবি) জাহেদ পারভেজ চৌধুরী। অভিযানে খানপুর এলাকার আশ্শিফা ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড জেনারেল হসপিটাল, নিউ সম্রাট জেনারেল হাসপাতাল ও ডন চেম্বারের সোহেল জেনারেল হাসপাতালের অনুমোদন না থাকায় এসব প্রতিষ্ঠান সিলগালা করে দেয় প্রশাসন।

পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে সোহেল জেনারেল হাসপাতালের অনুমোদন, ড্রাগ লাইসেন্সবিহীন ওষুধ মজুদ রাখার অপরাধে ১ লাখ ৫৫ হাজার, অনুমোদনহীন নিউ সম্রাট জেনারেল হাসপাতালকে ১ লাখ এবং মেয়াদোত্তীর্ণ রি-এজেন্ট মজুদ রাখার অপরাধে ইউনিক ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

অনুমোদনহীন আশ্শিফা ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড জেনারেল হসপিটালের মালিকপক্ষের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা রুজু করা হবে বলে নিশ্চিত করেছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নুশরাত আরা খানম।

অভিযান শেষে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নুশরাত আরা খানম ও মানজুরা মুশাররফ জানান, হাসপাতাল পরিচালনার জন্য সিভিল সার্জন কার্যালয় এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনার জন্য সিটি কর্পোরেশনের কোনো ধরনের লাইসেন্স ছাড়াই এসব প্রতিষ্ঠান তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছিল। এমন তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার ডা. আনোয়ার হোসেন বলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলায় লাইসেন্সবিহীন ১৮টি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও প্যাথলজি পরিচালিত হচ্ছে। এমন তালিকা তাদের কাছে রয়েছে। এ তালিকা ধরে আগামীতেও অভিযান অব্যাহত থাকবে।

অভিযানের খবর পেয়ে আশপাশের বেশ কয়েকটি বেসরকারি হাসপাতাল ও ফার্মেসি বন্ধ করে দিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ পালিয়ে যায়।

অনুমোদনহীন সব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে জানিয়ে জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইমতিয়াজ বলেন, অবৈধ ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ক্লিনিকের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে। তালিকা ধরে পর্যায়ক্রমে অভিযান পরিচালনা করা হবে।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক মো. জসিম উদ্দিন বলেন, ফার্মেসিগুলোতে আমাদের নিয়মিত অভিযান চলছে। পাশাপাশি অবৈধ ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোর বিরুদ্ধেও অভিযান অব্যাহত থাকবে। সিভিল সার্জন কার্যালয়ের যেকোনো সহযোগিতা প্রদান করতে জেলা প্রশাসন প্রস্তুত। তারা যেন তাদের নজরদারি অব্যাহত রাখেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *