সোমবার অক্টোবর ২৬, ২০২০ || ১০ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

আবারো সেই লাপাজ আতঙ্ক! হার এড়াতে পারলেই বাঁচে আর্জেন্টিনা

খবর২৪ডেস্ক

ভেন্যু লাপাজ বলেই আর্জেন্টিনার এমন লক্ষ্য। পৃথিবীর এমন কোনো দল নেই যার বিরুদ্ধে মাঠে নামার আগে হার এড়ানোর চিন্তা করেছে আর্জেন্টিনা। হোক সেটা পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল। কিংবা ফ্রান্স, ইতালি, জার্মানদের মতো পরাশক্তির বিপক্ষেও। কিন্তু প্রতিপক্ষ যখন বলিভিয়া, নির্দিষ্ট করে বললে লাপাজের স্টেডিয়াম। সেখানে আগেই আত্মসমর্পনের ঢঙে এগোয় আর্জেন্টিনা। শুধু আর্জেন্টিনা নয়, সব দলই।

মঙ্গলবার রাত ২টায় বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে লাপাজে বলিভিয়ার মুখোমুখি হবে আর্জেন্টিনা। তার আগে আর্জেন্টিনা কোচ লিওনেল স্কালোনি যেমন বলেছেন, অন্তত হার এড়াতে পারলেই খুশি তারা।

মেসিদের খেলতে হবে লাপাজ়ে পৃথিবীর উচ্চতম স্টেডিয়ামে। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে যার উচ্চতা ৩৬০০ মিটার অর্থাৎ ১১ হাজার ৮১১ ফুট! শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যার জন্য বলিভিয়া ছাড়া বিশ্বের সব দলের ফুটবলারদের কাছেই আতঙ্ক লাপাজ়ের এই স্টেডিয়াম। যদিও উচ্চতার সাথে মানিয়ে নিতে মেসিরা রোববারই পৌঁছে গিয়েছেন বলিভিয়ায়।

উচ্চতার সাথে বিপদ আছে আরো একটি আর্জেন্টিনার। আর সেটা হলো চোট। নেই অ্যাগুয়েরো। সর্বশেষ এই তালিকায় যোগ হয়েছেন ফর্মের তুঙ্গে থাকা পাওলো দিবালা। আর্জেন্টিনা শিবিরে তাই চাপ তৈরি হয়েছে বহুগুণ।

এই মাঠে দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের অতীত পারফরম্যান্স মোটেও আশা জাগানিয়া নয়। বলিভিয়ার বিপক্ষে যে সাতবার তারা হেরেছে, সবকটিই এখানে। তিন বছর আগে সবশেষ দেখাতেও হেরেছিল ২-০ গোলে।

আর্জেন্টিনার সাম্প্রতিক ফর্ম বেশ ভালো। টানা আট ম্যাচে জয়। কিন্তু তারপরও কোচ স্কালোনি স্বস্তি পাচ্ছেন না। ম্যাচে আর্জেন্টিনার লক্ষ্য কী? এমন প্রশ্নের জবাবে স্কালোনি বলেছেন, ‘এমন প্রশ্নের জবাব দেয়াটা কঠিন। যৌক্তিকভাবে এই মাঠে কিছু পাওয়াটাই ভালো ব্যাপার। তবে হ্যাঁ, তাতে আমরা সন্তুষ্ট হবো না। আমরা জানি, এখানে খেলা সর্বোচ্চ মাত্রার কঠিন একটা চ্যালেঞ্জ। তবে আমরা লড়াই করব এবং ভালোভাবে শেষ করার চেষ্টা করব।’

২০০৬ জার্মানি বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে সবশেষ এই মাঠে জিতেছিল আর্জেন্টিনা, ২০০৫ সালে। সেই ম্যাচে খেলেছিলেন আজকের কোচ স্কালোনি।

সেই অভিজ্ঞতা কাজে লাগানোর পরিকল্পনা স্কালোনির, ‘দলের সম্ভাব্য সবটুকু শক্তি নিয়ে লড়াইয়ে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে…যত বেশি বল দখলে রাখা যাবে তত ভালো। আর যখন আক্রমণ করা সম্ভব হবে তখনই আঘাত হানতে হবে। গোল করার সুযোগ তৈরি করতে হবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *