মঙ্গলবার ডিসেম্বর ১২, ২০১৭ || ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

তালেবান আস্তানায় ৫ বছর ধরে ধর্ষণ করা হয় কেটল্যানকে!

খবর২৪ডেস্ক
কেটল্যান। যার সাথে ঘটে গেছে শতাব্দীর অন্যতম পাশবিক নির্যাতন।

প্রথমে ঘরে ঢুকিয়ে ধাক্কা মেরে ফেলে দেওয়া হয়। এরপর এক এক করে খুলে নেওয়া হয় পোশাক। এরপর নেকড়ের মতো ঝাপিয়ে পড়ে ধর্ষণ করে তিন তালেবান জঙ্গি।
তালেবানের আস্তানায় পাঁচবছর বন্দি ছিলেন কেটল্যান। সাথে স্বামী ও সন্তান। সেখান থেকে মুক্ত হয়ে এভাবেই তার ওপর পাশবিক নির্যাতনের ঘটনা বর্ণনা করেন কেটল্যান। ৩১ বছর বয়সী ওই নারী বলেন, এ জানোয়াররা আমার কাপড়গুলো কখনোই ফিরিয়ে দিতে পারবে না।

কেটল্যান ২০১২ সালে কানাডার নাগরিক জোশুয়া বয়েলকে সদ্য বিয়ে করেন। এরপর ঘুরতে যান আফগানিস্তানে।

কেটল্যান ও জোশুয়াকে সেখানেই অপহরণ করে জঙ্গিরা। চোখে কাপড় বেঁধে, বন্দুকের মুখে দু’জনকে তাদের গোপন আস্তানায় নেয়া হয়। সেখানে বন্দি থাকা অবস্থাতেই তিন সন্তানের মা হন কেটল্যান।
গত মাসে পাকিস্তানে মুক্তি পাওয়ার পর এবিসি টেলিভিশনকে দেয়া সাক্ষাৎকারে কেটল্যান বলেন, ওরা আমার ওপর, আমার স্বামী, ছেলেমেয়েদের ওপর যে নির্মম অত্যাচার করেছে, তা ভাষায় প্রকাশের মতো নয়। ওরা শিশুদেরও রেহাই দেয় না। আমাকে প্রচণ্ড মারধর করা হতো। আমার সারা গায়ে কালো ক্ষত পড়ে গিয়েছিল। ঘরে ঢুকে আমাকে নিয়ে টানা-হেঁচড়া করতো জঙ্গিরা। এক জঙ্গি আমাকে ব্যবহারের পর ঘরের অন্য প্রান্তে ছুড়ে দিতো। সেখান থেকে আমাকে ছুড়ে ফেলে দিচ্ছে আরেক জঙ্গি।

কেটল্যানকে দিনের পর দিন ধর্ষণ করেছে তালেবান জঙ্গিরা, তাদের গোপন আস্তানায়। বাধা দিতে গেলেই মারা হতো চাবুক। লাঠি দিয়েও কেটল্যান, তার স্বামী জোশুয়া আর তাদের তিন শিশুসন্তানকে বেধড়ক পেটানো হতো। জঙ্গিদের মারধরের হাত থেকে স্বামী জোশুয়া আর ছেলেমেয়েদের বাঁচাতে গিয়ে তার চিবুকের হাড় আর হাতের তিনটি আঙুল ভেঙে যায়।

জোশুয়া বলেন, প্রায়ই আমাদের মাথা কেটে ফেলার হুমকি দিতো জঙ্গিরা। কাঠের টুকরা দিয়ে পুতুল বানিয়ে বোতলের ছিপি দিয়ে তাদের মাথা বানানো হত। আর সেই পুতুলগুলো আমাদের সামনে এনে দেখানো হতো, তাদের ওপর থেকে বোতলের ছিপি সরিয়ে নেওয়ার মতো কি সহজে আমাদের মাথা কেটে ফেলা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *