মঙ্গলবার ডিসেম্বর ১২, ২০১৭ || ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

পুদিনাপাতার যে ১১ টি ব্যবহার আপনি জানতেন না!

খবর২৪ডেস্ক
পুদিনাপাতা হলো সমগ্র উদ্ভিদ জগতের মাঝে অন্যরকম এক আশ্চর্যজনক এবং দারুণ উপাদান, যার বহুমাত্রিক গুণের যেন শেষ নেই! এই পাতার দারুণ মিষ্টি গন্ধ যেমন বাগানে ভালো পোকা আকৃষ্ট করার জন্যে দরকারি তেমন ঠাণ্ডার সমস্যা দূর করার জন্যেও উপকারী।

চাটনি থেকে শুরু করে শরবত কিংবা যেকোন রান্নাতেও অল্প কয়েকটি পুদিনাপাতা যেন খাবারে অসাধারণ স্বাদ এনে দেয়। তবে এই পাতা শুধুই খাবার জন্যে অথবা বাগানের জন্যে উপকারী তা কিন্তু নয়। এই পাতায় থাকা বিশেষ উপাদানের জন্য পুদিনাপাতা আপনার শরীরের নানা সমস্যাতেও চমৎকার কাজের একটি জিনিস। জেনে নিন পুদিনাপাতার এমনই অজানা এবং দারুণ কিছু ব্যবহার যা আপনার জীবনকে আরো সহজ করে তুলতে সাহায্য করবে।

১/ উপকারী পোকামাকড়কে আকৃষ্ট করে
ঘরের ভেতরে অথবা উঠানে আপনার শখের বাগানের ফুল এবং ফলের ফলন বাড়াতে চাইলে বাগানের মাঝে পুদিনাপাতার চারা লাগানোটা হবে খুবই বুদ্ধিমানের কাজ। কারণ পুদিনাপাতার মাঝে ফুলের মধু এবং রেণু উভয়েও রয়েছে প্রচুর পরিমাণে। পুদিনাপাতার ছোট ফুলের গুচ্ছ খুব সহজেই গাছের জন্য উপকারী পোকা এবং পতঙ্গকে আকৃষ্ট করে থাকে।

২/ ক্ষতিকারক পোকামাকড়কে দূরে রাখে
পুদিনাপাতা একদিনে যেমন ভালো পোকামাকড়কে আকৃষ্ট করে, তেমনই ক্ষতিকর পোকা এবং পিঁপড়াকে দূরে রাখতেও সাহায্য করে। পুদিনাপাতার এসেনশিয়াল অয়েল পানিতে মিশিয়ে ঘরের দরজা এবং জানালাতে স্প্রে করে দিলেই দারুণ কাজে দেবে।

৩/ ঘরের বাজে গন্ধ দূর করতে সাহায্য করে
ঘরের যে কোন বাজে গন্ধ দূর করে ঘরকে একদম সুবাসিত করে তোলার জন্য পুদিনাপাতা অথবা পুদিনা পাতার এসেনশিয়াল অয়েলের যেন জুড়ি নেই। ঘরে কিছু পুদিনাপাতা থাকলে কুচি করে কেটে নিয়ে এরপর পানিতে ভালোভাবে মিশিয়ে নিয়ে স্প্রে বোলতে ভরে ঘরের কোনায় কোনায় স্প্রে দিন।

৪/ মুখের দুর্গন্ধ দূর করুন নিমিষেই
মুখের দুর্গন্ধ দূর করার জন্য কোন লজেন্স কিংবা চুইংগামের জন্য অপেক্ষা করে থাকতে হবে না আপনাকে। কয়েকটা পুদিনাপাতা চিবিয়েপানি দিয়ে খেয়ে ফেললেই দেখবেন ম্যাজিক!

৫/ পেটের সমস্যা সমাধানে পুদিনাপাতা
খাদ্য সঠিকভাবে পরিপাক না হওয়ার জন্য পেটে ব্যথা অথবা গ্যাস্ট্রিকের সমস্যার জন্য পেটে ব্যথা হলে পুদিনাপাতা সেক্ষেত্রে পুদিনাপাতার শরবত অথবা পুদিনাপাতার চা খুব দারুণ কাজে দেবে।

৬/ হেঁচকি বন্ধে সাহায্য করে
একবার হেঁচকি ওঠা শুরু করলে অনেক সময় দেখা যায় সহজে সেটা আর বন্ধই হতে চায় না। বেশী করে পানি খেয়ে, নাক বন্ধ করে রেখে অথবা চিনি খেয়েও অনেক সময় কোন কাজই হতে চায় না। সেক্ষেত্রে পুদিনাপাতাই আপনার শেষ ভরসা হতে পারে। এক গ্লাস কুসুম গরম পানিতে কয়েক ফোঁটা লেবুর রস, এক চিমটি লবণ এবং কয়েকটি পুদিনাপাতা কুঁচি করে দিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে খেয়ে ফেলুন। দেখবেন কিছুক্ষণের মাঝে হেঁচকি ওঠা বন্ধ হয়ে গেছে।

৭/ নাকবন্ধ ভাব দূর করবে সহজেই
ঠান্ডার কারণে নাকবন্ধ ভাব হলে একটা বড় বাটিতে খুব সাবধানে গরম পানি নিয়ে তাতে কয়েক ফোঁটা পুদিনাপাতার এসেনশিয়াল অয়েল অথবা কয়েকটি ফ্রেশ পুদিনাপাতা ছিঁড়ে দিয়ে দিন। এরপর বাটির উপরে ঝুঁকে গরম ভাপটা নাক দিয়ে টেনে নিতে থাকুন। কিছুক্ষণের মাঝেই দেখবেন নাকবন্ধ ভাব অনেকটাই কমে গেছে।

৮/ রোদে পোড়াভাব দূর করুতে সাহায্য করবে
পুদিনা পাতার দারুণ রিফ্রেশিং ভাব রোদে পোড়াভাব কমাতে সাহায্য করে খুব দারুনভাবে। রোদে পুড়ে যাওয়া অংশে কিছু পুদিনাপাতা ঘষে নিন মোলায়েমভাবে, দেখবেন চমৎকার কাজে দেবে। অথবা পানিতে কিছু পরিমাণে পুদিনাপাতার এসেনশিয়াল অয়েল মিশিয়ে নিয়ে, রোদে পোড়া অংশে লাগালেও কাজে দেবে।

৯/ মাথাব্যথা ভালো করতে সাহায্য করে
পুদিনাপাতায় থাকা পিপারমিন্ট ব্যথা কমাতে সাহায্য করে বলে মাথাব্যথা কমাতে সেটা খুব দারুনভাবে সাহায্য করে। পুদিনাপাতার ঠাণ্ডা করার উপাদান ত্বকের এবং পেশীতে আরাম প্রদান করে বলে রক্ত প্রবাহ বেড়ে যায়, যা মাথাব্যথা কমাতে কাজ করে থাকে।

১০/ এলার্জির সমস্যা কমিয়ে দেয় অনেক
পুদিনাপাতাতে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং প্রদাহ-বিরোধী উপাদান রোসম্যারিনিক এসিড। সাম্প্রতিক সময়ের গবেষণা থেকে পাওয়া গিয়েছে যা মৌসুমি এলার্জির সমস্যা থেকে রেহায় দিতে পারে।

১১/ স্তন্যপানের ফলে স্তনের ব্যথা কমাতে সাহায্য করে
মা এবং শিশু উভয়ের জন্যে স্তন্যপাণ করানো খুবই দরকার এবং উপকারীও বটে। তবে বেশিরভাগ সময়েই স্তন্য পান করানোর ফলে মায়ের স্তনে এবং স্তনের বোঁটায় প্রচণ্ড ব্যথা হতে থাকে। সম্প্রতিক সময়ের কিছু গবেষণা থেকে পাওয়া গিয়েছে যে, পুদিনাপাতার পানি অথবা জেল সেক্ষেত্রে খুব দারুণভাবে কাজে দিয়ে থাকে।

প্রথমবার যারা মা হয়েছেন এবং সন্তানলে স্তন্যপান করাচ্ছেন তাদের স্তনে এবং স্তনের বোঁটায় বেশী ব্যথা এবং যন্ত্রণা হলে পুদিনাপাতার ঠাণ্ডা পানি ব্যথাযুক্ত স্থানে দিনের মাঝে কয়েকবার করে দিলে খুব ভালো কাজে দেবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *